কৃষি তথ্য সার্ভিস (এআইএস) গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C

পান বরজে ব্যবহৃত উপকরণের আয়ুষ্কাল বৃদ্ধি

পান বাংলাদেশের একটি অর্থকরী ফসল। পান সাধারণত বরজ তৈরি করে সেখানে চাষ করা হয়। পান বরজে বাঁশের শলা, খুঁটি, কাইম ও ছন ব্যবহারের প্রয়োজন। এসব জিনিস যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ না করলে তাড়াতাড়ি নষ্ট হয়ে যায়। ঝরে অথবা বাতাসে ভেঙে পড়ে। এতে পানের অনেক ক্ষতি হয়। পোকামাকড় ও রোগের আক্রমণ বেড়ে যায়। তাছাড়া ভেঙে গেলে পানের অর্থনৈতিক ক্ষতি হয়। রাসায়নিক সংরক্ষণী প্রয়োগে পান বরজে ব্যবহৃত বাঁশের শলা বা কাঠি, খুঁটি, কাইম, ছন ও অন্যান্য উদ্ভিদজাত সামগ্রীর আয়ুষ্কাল ৪-৫ গুণ বৃদ্ধি করা যায়।
 
সংরক্ষণের পদ্ধতি
তুঁতে (কপার সালফেট), সোডিয়াম ডাইক্রোমেট ও বোরিক এসিডের সংরক্ষণী দ্রবণ সংক্ষেপে সিসিবি দ্রবণে চুবিয়ে কাঠি, ছন ইত্যাদিতে সংরক্ষণী প্রয়োগ করতে হবে। বাঁশের খুঁটি সংরক্ষণের জন্য খুঁটির ভেতরের রস অপসারণ বা স্যাপ ডিসপ্লেসমেন্ট পদ্ধতি অনুসরণ করতে হবে।                                                                                                                                    

সংরক্ষণী প্রয়োগ করার আগে করণীয়
-নির্দিষ্ট মাপের বাঁশের শলা তৈরি করে পরিষ্কার করে নিতে হবে।
-লক্ষ রাখতে হবে, শলার গায়ে যেন কাদা বা মাটি লেগে না থাকে।
-শলাগুলো ভালোভাবে শুকিয়ে নিতে হবে।
 একইভাবে ৪-৫ ফুট মাপের বাঁশের খুঁটিও তৈরি করে শুকিয়ে নিতে হবে। সংরক্ষণী প্রয়োগের জন্য প্রয়োজনীয় উপকরণ-
-রাসায়নিক সংমিশ্রণের দ্রবণ।  রাসায়নিক দ্রবণে শলা, কাঠ এবং বাঁশ চুবানোর জন্য একটি ট্যাংক।
-শলা ও খুঁটির মাপের চেয়ে একটু বড় আকারের একটি ট্যাংক (৩x৪) ইঞ্চি তৈরি করতে হবে। সাধারণত এসব কাজ করতে ১০x২x২ আকারের ট্যাংক করা উত্তম।
-ট্যাংকটি পাকা হতে পারে অথবা টিন (প্লেইন শিট) বা কাটা ড্রাম (হাফ ড্রাম) দিয়ে তৈরি করা যাবে। এছাড়া সাময়িকভাবে মাটিতে গর্ত করেও ট্যাংক তৈরি করা যেতে পারে।      
-শুকানো বাঁশের শলা, কাইম বা ৪-৫ ফুট লম্বা বাঁশের খুঁটি ট্যাংকে শুইয়ে দিতে হবে।
-ট্যাংকে সংরক্ষণী দ্রবণ এমনভাবে ঢালতে হবে যেন মিশ্রণের পরিমাণ সংরক্ষণী সামগ্রীর অন্তত তিন ইঞ্চি ওপরে থাকে।

রাসায়নিক মিশ্রণ প্রস্তুত প্রণালি
মাটি, কাদা, বৃষ্টি ও উন্মুক্ত স্থানে ব্যবহৃত সামগ্রীর জন্য প্রয়োজনীয় সংরক্ষণী দ্রবণ প্রস্তুতের জন্য রাসায়নিক দ্রব্যসামগ্রীর নাম ও অনুপাত নিচে দেয়া হলো-
রাসায়নিক দ্রব্যের নাম        অনুপাত
কপার সালফেট (তুঁতে)        ২ ভাগ
সোডিয়াম ডাইক্রোমেট        ২ ভাগ
বোরিক এসিড                ১ ভাগ
বাঁশের শলা, কাইম, কাঠি ও ৪-৫ ফুট লম্বা বাঁশের খুঁটি সংরক্ষণের জন্য প্রয়োজন ১০% ঘনত্বের দ্রবণ। ১০% ঘনত্বের ১০০ লিটার দ্রবণ  তৈরি করতে লাগবে।
রাসায়নিক দ্রব্যের নাম         অনুপাত
কপার সালফেট (তুঁতে)        ৪ কেজি
সোডিয়াম ডাইক্রোমেট         ৪ কেজি
বোরিক এসিড                 ২ কেজি
পানি                           ৯০ লিটার

বাঁশের খুঁটি সংরক্ষণ পদ্ধতি
৮-১০ ফুট লম্বা খুঁটি সহজেই রস অপসারণ বা স্যাপ ডিসপ্লেসমেন্ট পদ্ধতিতে সংরক্ষণ করা যায়। এজন্য দরকার শতকরা ২০ ভাগ ঘনত্বের সিসিবি দ্রবণ। ২০ ভাগ ঘনত্বের লিটার সংরক্ষণী দ্রবণ প্রস্তুতের জন্য প্রয়োজন হবে।
 
কপার সালফেট (তুঁতে)    ৮ কেজি
সোডিয়াম ডাইক্রোমেট     ৮ কেজি
বোরিক এসিড             ৪ কেজি
পানি                      ৮০ লিটার     
খুঁটি সংরক্ষণের জন্য সদ্যকাটা বাঁশের কঞ্চিগুলো ছেটে ৮-১০ ফুট লম্বা বাঁশের টুকরা করতে হবে। তারপর একটি ড্রামে সংরক্ষণী দ্রবণে খুঁটিগুলোর এক প্রান্ত ডুবিয়ে দিতে হবে। ড্রামে সংরক্ষণীর গভীরতা কমপক্ষে দুই ফুট থাকতে হবে। সংরক্ষণ প্রক্রিয়া চলাকালীন দ্রবণের উচ্চতা ২ ফুট রাখর জন্য প্রয়োজনে নতুন দ্রবণ ঢালতে হবে। এভাবে ৩-৪ দিন রাখুন। ৩-৪ দিন পর খুঁটিগুলোর অপর প্রান্ত একই দ্রবণে ডুবিয়ে আবার ৩-৪ দিন রাখতে হবে। তারপর দ্রবণ থেকে উঠিয়ে ২-৩ দিন ছায়ায় শুকিয়ে নিতে হবে।

ছন, ধানের খড় সংরক্ষণ পদ্ধতি
ছন, ধানের খড়, পাট-খড়ি চুবানো পদ্ধতিতে সংরক্ষণ করা যায়। এজন্য প্রয়োজন শতকরা আড়াই ভাগ (২.৫%) ঘনত্বের দ্রবণ। শতকরা আড়াই ভাগ ঘনত্বের ১০০ লিটার দ্রবণ প্রস্তুতের জন্য প্রয়োজন-
কপার সালফেট (তুঁতে)        ১ কেজি
সোডিয়াম ডাইক্রোমেট        ১ কেজি
বোরিক এসিড            ৫০০ গ্রাম
পানি                ৯৭.৫ লিটার
ছন, ধানের খড়, পাট-খড়ি ৬ ঘণ্টা দ্রবণে চুবিয়ে নিতে হবে। তারপর দ্রবণ থেকে উঠিয়ে দ্রবণ ঝরানোর পর ২-৩ দিন ছায়ায় শুকিয়ে ব্যবহার করতে হবে।
 
-সংরক্ষিত শলা ব্যবহারে প্রথম বছরে পান গাছের বায়বীয় মূল শলার গায়ে একটু কম ধরে, তাই প্রথম দিকে পাতের লতা একটু বেঁধে দিতে হয়। কিন্তু পরের বছরে আর কোনো সমস্যা থাকে না।
-এ শলা ব্যবহারে পান গাছের বৃদ্ধি এবং পানের ফলনে কোনো প্রভাব পড়ে না বা ক্ষতি হয় না।
মনে রাখা প্রয়োজন।
-সংরক্ষণী প্রয়োগের আগে বাঁশ, কাঠি ও অন্যান্য সামগ্রী ভালোভাবে পরিষ্কার করে নিতে হবে।
-সংরক্ষণী প্রয়োগের পর সামগ্রীগুলো ছায়ায় ২-৩ দিন শুকিয়ে পরে ব্যবহার করতে হবে।
যেসব বিষয়ে সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে।
-সংরক্ষণী প্রয়োগের সময় হাতে রাবারের দস্তানা ব্যবহার করতে হবে।
-সংরক্ষণী দ্রবণ বিষাক্ত বিধায় গবাদিপশু ও শিশুদের নাগালের বাইরে রাখতে হবে।

 উপসংহার : দেশে মানুষের সংখ্যা প্রতি বছর বাড়ছে। এজন্য পানের চাহিদাও বাড়ছে। শাকসবজি ও দানাদার ফসলের জাত ও উৎপাদন প্রযুক্তির যত উন্নয়ন ঘটেছে পানের ক্ষেত্রে সেটি ঘটেনি। পান চাষের উন্নয়নের জন্য কোনো প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে বলে আমার জানা নেই। পানচাষিদের পানের জাত, সার ব্যবস্থাপনা, বালাইব্যবস্থাপনা, প্রক্রিয়াজাতকরণ বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেয়া প্রয়োজন। এতে দেশে পানের উৎপাদন বাড়বে এবং কৃষক লাভবান হবে। পানের বিভিন্ন জাত নিয়ে গবেষণা করা প্রয়োজন, বিশেষ করে মিঠা পানের জাত। মিঠাপানের চাহিদা দেশে ও বিদেশে রয়েছে।
 
 
ড. সন্তোষ কুমার সরকার*
* রূপায়ণ লোটাস,৬বি, ১৩ তোপখানা রোড,ঢাকা-১০০০

Share with :

Facebook Facebook