কৃষি তথ্য সার্ভিস (এআইএস) গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ১১ মার্চ ২০১৯

রাজশাহীর পবায় ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে স্থাপিত বোরো প্রদশর্নীর মাঠ দিবস অনুষ্ঠিত


প্রকাশন তারিখ : 2019-03-10

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর পবার সার্বিক সহযোগিতায় আলিমগঞ্জ ব্লকের আলিমগঞ্জ গ্রামে ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে রাজস্ব খাতের স্থাপিত বোরো প্রদশর্নীর মাঠ দিবস অনুষ্ঠিত হয়। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর রাজশাহীর উপপরিচালক কৃষিবিদ মোঃ শামছুল হক এর সভাপতিত্বে মাঠ দিবস অনুষ্ঠানে প্রধান অতিধি ছিলেন কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর খামারবাড়ি ঢাকা ক্রপস উইং এর পরিচালক কৃষিবিদ এস এম হাছেন আলী। বিশেষ অতিথি ছিলেন কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর রাজশাহী অঞ্চল, রাজশাহীর অতিরিক্ত পরিচালক কৃষিবিদ মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর চাঁপাইনবাবগঞ্জ এর উপপরিচালক কৃষিবিদ মোঃ মঞ্জুরুল হুদা, নাটোরের উপপরিচালক কৃষিবিদ মোঃ রফিকুল ইসলাম, পাবনার উপপরিচালক কৃষিবিদ মোঃ আজাহার আলী, নওগাঁ জেলার ভারপ্রাপ্ত উপপরিচালক কৃষিবিদ মাসুদুর রহমান ও হরিপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ফজলে রিজভি আল হাসান মঞ্জিল।
 
শুরুতে সুধীজনদের স্বাগত জানিয়ে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন উপজেলা কৃষি অফিসার পবা কৃষিবিদ শারমিন সুলতানা। তিনি বলেন নতুন জাত ব্রিধান-৬৩ সম্প্রসারণের জন্য ১বিঘা জমিতে ৫কেজি বীজ, ইউরিয়া-৩৫কেজি, টিএসপি ও এওপি-১৬কেজি করে, জিপসাম-১০কেজি, দস্তা-১.৫কেজি এবং পরিচর্যা বাবত-১০০০/=টাকা কৃষককে প্রদান করা হয়েছে। আশা করি জাতটির ফলন ভাল হবে। তিনি মাঠ দিবসে উপস্থিত সকলকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানান।

 

প্রধান অতিথি তাঁর বক্তব্যে বলেন, রাজশাহী জেলা দানাদার, ফল ও সবজি ফসলের শস্য ভান্ডার। ব্রিধান-৬৩ একটি বোরো মৌসুমের নতুন জাত হিসাবে মাঠে দেওয়া হয়েছে। ফলন ব্রিধান ২৮ এর চেয়ে ভাল হবে আশা করি। তিনি নতুন এই জাতটি বীজ হিসাবে কৃষক পর্যায়ে সংরক্ষন ও বিতরন করে সম্প্রসারণ করার জন্য উপজেলা কৃষি অফিসাকে নির্দেশ প্রদান করেন। পরিশেষে তিনি উপস্থিত কৃষকদের বেশী ফলনশীল ধান পরিমানে কম আবাদ করার ও বরেন্দ্র অঞ্চলে পানি কম লাগে এমন ফসল ভুট্টা চাষ করার পরামর্শ প্রদান করেন। তিনি ২/১টি সেচ দিয়ে  সহজেই এর চাষ করা যায় এমন ফসল আবাদ করার উদাত্ব আহবান জানান। 

       
সভাপতি তাঁর বক্তব্যে বলেন, ব্রিধান-৬৩ জাতটি উচ্চ ফলনশীল বোরো মৌসুমের জন্য নতুন জাত। আমাদের রাজশাহীতে বোরো মৌসুমে বেশীর ভাগ জমিতে ব্রিধান-২৮ এর আবাদ হয়ে থাকে। ব্রিধান-২৮ এর চেয়ে ব্রিধান-৬৩ এর ফলন তুলনামুলক বেশী এবং চাল চিকন। উপস্থিত কৃষকদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন এই ব্রিধান-৬৩ জাতটির বীজ আগামীতে আপনারা প্রদশর্নীর কৃষকের নিকট থেকে নিয়ে আবাদ করবেন তবেই এলাকায় দ্রুত সম্প্রসারণ হবে।


অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথিদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর রাজশাহী অঞ্চল, রাজশাহীর অতিরিক্ত পরিচালক কৃষিবিদ মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান ও  হরিপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ফজলে রিজভি আল হাসান মঞ্জিল। মাঠ দিবসে উপস্থিত ছিলেন রাজশাহী জেলার প্রশিক্ষন অফিসার কৃষিবিদ মঞ্জুরুল হক, রাজশাহী জেলার সকল অতিরিক্ত উপপরিচালক, উপজেলা পর্যায়ের সকল কর্মকর্তা/কর্মচারি, কৃষি তথ্য সার্ভিসের রাজশাহীর কর্মকর্তা, এলাকার গণ্যমান্য ব্যাক্তি ও আদর্শ কৃষক/কৃষানী মিলে ৩০০ জন উপস্থিত ছিলেন।                                                                                                          

 


Share with :

Facebook Facebook