কৃষি তথ্য সার্ভিস (এআইএস) গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C

কৃষি কথা

গাজরের রসের উপকারিতা
গাজর অত্যন্ত জনপ্রিয় সবজি। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে লাল, সাদা, হলদে নানা বর্ণের গাজর দেখা যায়। আমাদের দেশে জন্মে কমলা রঙের গাজর। এটা শীতকালীন সবজি। গাজর দেখতে যেমন সুন্দর ও আকর্ষণীয় তেমনি খেতেও সুস্বাদু। তদুপরি পুষ্টিতেও ভরপুর। এত সুন্দর ও দৃষ্টিনন্দন হওয়ার বড় কারণ এর মধ্যে বিদ্যমান বিটা-ক্যারোটিন। গাজর নিজে যেমন সুন্দর তেমনি মানুষের রঙ উজ্জ্বল করতেও এটি সহায়ক।
 
সবজি হিসেবে গাজরের ব্যবহার ব্যাপক। মাছ-গোশতের সঙ্গেও খাওয়া যায়। গাজরের হালুয়া অনেকের কাছেই অতি প্রিয়। সালাদ হিসেবে গাজর বেশ জনপ্রিয়। সামান্য লবণ মিশিয়ে এটি কাঁচাই খাওয়া যায়। পুষ্টিসমৃদ্ধ এ সবজিটির বাজারমূল্য মৌসুমের সময় থাকে একেবারেই সস্তা। এর উচ্চ পুষ্টিমান জানা থাকলে এর বাজারমূল্য চড়ে যেতো বহুগুণ। এখানে গাজরের প্রতি ১০০ গ্রাম আহার উপযোগী অংশে পুষ্টিমান উল্লেখ করা হলো-
 
খাদ্য শক্তি- ৪৮ ক্যালোরি
শর্করা- ১০.৬০ গ্রাম
খনিজ পদার্থ- ১.১০ গ্রাম
ক্যালসিয়াম- ৮০.০০ মি. গ্রাম
ফসফরাস- ৫৩০.০০ মি. গ্রাম
লৌহ- ২.২০ মি. গ্রাম
ক্যারোটিন- ১৮৯০.০০ মাইক্রোগ্রাম
ভিটামিন বি ১ - ০.০৪ মি. গ্রাম
ভিটামিন সি- ৩.০০ গ্রাম
উৎস : কৃষি প্রযুক্তি হাত বই, বারি-২০০৫

অন্যান্য সবজির তুলনায় গাজর অত্যন্ত পুষ্টিকর। উদাহরণস্বরূপ মুলার চেয়ে গাজরে ফসফরাস আছে ২৬ গুণ, ক্যারোটিন প্রায় ৬৩০ গুণ।
 
গাজরের রসের উপকারিতা
১. চোখের মহৌষধ : গাজরের আকর্ষণীয় বর্ণের মধ্যেই রয়েছে এর ঔষধি গুণ। গাজরের বিটা ক্যারোটিন নিজে নিজেই ভিটামিন-এ’তে রূপান্তরিত হয় যা দেহের জন্য খুবই উপকারী। বিটা-ক্যারোটিন আমাদের দেহের ভেতরে রাসায়নিক বিক্রিয়ার মাধ্যমে রেটিনল বা ভিটামিন-এ’তে রূপান্তরিত হয়, আর ভিটামিন-এ আমাদের দৃষ্টিশক্তি স্বাভাবিক রাখতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। আমাদের দেশে প্রতি বছর ৩০ থেকে ৪০ হাজার শিশু অন্ধ হয়ে যায় ভিটামিন-এ’র অভাবে। সাধারণত ৫ মাস থেকে ৫ বছর বয়সের শিশুরাই চোখের সমস্যায় ভোগে। প্রতি বছর প্রায় ৫ লাখ শিশু রাতকানা রোগে আক্রান্ত হয়। তাই শিশুকে প্রতিদিন ভিটামিন-এ সমৃদ্ধ খাবার খাওয়াতে হয়। গাজর ক্যারোটিনের রাজা, যা ভিটামিন-এ’র উৎস। তাই শিশুদের প্রতিদিন অন্তত মৌসুমের সময় গাজর খাওয়ানো উচিত।
 
২. হজমশক্তি বৃদ্ধি করে : গাজরের রস লিভারের কার্যকারিতা বাড়ায়। ফলে হজম শক্তির উন্নতি হয়।
 
৩. হাড়ের রোগ প্রতিরোধে সহায়ক : রোগ প্রতিরোধ গাজরের অস্টিওপরোসিস, আথ্রাইটিস ও বিভিন্ন রস হিতকর।
 
৪. ক্যান্সার প্রতিরোধে সহায়ক : গাজরে রয়েছে ভিটামিন-ই, যা ক্যান্সার প্রতিরোধী। তাই গাজর ক্যান্সার প্রতিরোধে সহায়ক। গাজরে বিদ্যমান বিটা-ক্যারোটিন আমাদের ত্বককে সূর্যের অতি বেগুণি রশ্মির হাত থেকে সুরক্ষা করে এমনকি ক্যান্সার থেকে রক্ষা করে।
৫. বুড়িয়ে যাওয়া রোধ করে : বয়সের ছাপ কমাতে গাজরের রস সাহায্য করে। গাজর বিটা- ক্যারোটিন সমৃদ্ধ, যা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং কোষের ক্ষয় রোধে সহায়ক। ফলে দ্রুত বুড়িয়ে যাওয়াকে রোধ করে।

 
৬. ওজন কমায় : গাজরে ক্যালোরির পরিমাণ যৎসামান্য, যা ওজন কমাতে বেশ সহায়ক।
 
৭. কোলস্টেরল কমায় : গাজরে পটাসিয়াম বিদ্যমান, যা কোলস্টেরল কমাতে সাহায্য করে।

৮. চর্বি কমায় : গাজরের রস লিভারের চর্বি ও পিত্ত কমাতে সাহায্য করে।

৯. ত্বকের লাবণ্য বাড়ায় : গাজরের রস ত্বকের লাবণ্য ও উজ্জ্বলতা বাড়ায় এবং ত্বককে সুরক্ষা করে।

১০. ব্যথা ও জ্বালাপোড়া কমায় : বয়সজনিত যে কোনো ব্যথা-বেদনা ও শরীরের জ্বালাপোড়া কমাতে গাজরের রস হিতকর।
 
গাজর আল্লাহর এক অপূর্ব দান। এর উপকারিতার শেষ নেই। তাই-সুস্থ নীরোগ থাকতে যদি চান, বেশি করে গাজর খান।
 
 
মু. ফজলুল হক রিকাবদার
*পরিচালক (অব.) কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর ও কৃষি তথ্য সার্ভিস, খামারবাড়ি, ফার্মগেট, ঢাকা-১২১৫
 
বিস্তারিত
বাংলাদেশের কৃষি : চ্যালেঞ্জ ও উত্তরণ
আমাদের জন্মভূমি বাংলাদেশ। সুজলা সুফলা, শস্য-শ্যামলা মলয়জ শীতলা এক অপরূপ অনিন্দ্য সুন্দর বাংলাদেশ। বিশ্বকবির সোনার বাংলা, নজরুলের বাংলাদেশ, জীবনানন্দের রূপসী বাংলা, রূপের যে নাইকো শেষ বাংলাদেশ। পদ্মা, মেঘনা, যমুনা, ব্রক্ষ্মপুত্র ও বুড়িগঙ্গা বিধৌত বাংলার রূপ ও সৌন্দর্যে সবই মনোমুগ্ধকর। বাংলাদেশ সবুজের দেশ। ষড়ঋতুতে বাংলাদেশ বিভিন্ন সাজে সজ্জিত হয়। কবি তাই যথার্থই বলেছেন, এমন দেশটি কোথাও খুঁজে পাবে নাকো তুমি, সকল দেশের সেরা সে যে আমার জন্মভূমি। কিন্তু আমাদের অপরিণামদর্শী কর্মকাণ্ডের কারণে আজ আমাদের দেশ তথা বাংলাদেশের মেরুদণ্ড কৃষি নানামুখী চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন। জীবন জীবিকার জন্য এদেশের জনগণ ও অর্থনীতি মূলত কৃষির ওপর নির্ভরশীল। এখনও শতকরা প্রায় ৭০ ভাগ জনসাধারণ প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে কৃষির ওপর নির্ভরশীল এবং মোট জিডিপির ২২ শতাংশ আসে কৃষি থেকে। তাই কৃষি উৎপাদনে বিপর্যয় ঘটলে দেশের সামাজিক অর্থনীতি তথা অস্তিত্ব বিপন্ন হয়ে পড়বে।
 
পৃথিবীর মধ্যে জনবহুল দেশ বাংলাদেশ। লোক সংখ্যা প্রায় ১৬ কোটি। প্রতিদিন জন্ম নিচ্ছে ৭ হাজার নতুন মুখ, বছরে বৃদ্ধি পাচ্ছে প্রায় ২৫ লাখ লোক। অপরদিকে রাস্তাঘাট, মিল-কারখানা, অপরিকল্পিত বাড়িঘর ইত্যাদি অবকাঠামো তৈরিতে চাষযোগ্য জমি থেকে প্রতিদিন ২২০ হেক্টর হিসেবে প্রতি বছর হারিয়ে যাচ্ছে প্রায় ৮০ হাজার ৩০০ হেক্টর জমি। বর্ধিত জনসংখ্যার জন্য পাল্লা দিয়ে নিবিড়ভাবে চাষ করা হচ্ছে ধান আর ধান। খাদ্য নিরাপত্তার জন্য ধানের সঙ্গে আনুপাতিক হারে অন্যান্য ফসলের (ডাল, তেল, শাকসবজি, ফল-মূল) চাষ আশানুরূপ বাড়ানো যায়নি। দানাদার খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ হলেও অন্যান্য খাদ্য উৎপাদনে আমরা খাদ্য নিরাপত্তা অর্জন করতে পারেনি। খাদ্য নিরাপত্তার প্রথম এবং প্রধান শর্তই হচ্ছে- খাদ্য জোগানের সঙ্গে মানুষের ক্রয়ক্ষমতা থাকা অর্থাৎ নিশ্চিত আয়ের সংস্থান থাকা যার দ্বারা সবাই চাহিদা ও পছন্দমতো নিরাপদ এবং প্রয়োজনীয় আমিষসহ পুষ্টিকর খাবার সংগ্রহ করতে পারে।
 
স্বাধীনতা উত্তর ১৯৭২ সালে দেশে খাদ্যশস্য উৎপাদন ছিল ১ কোটি ১০ লাখ মেট্রিক টন। সাড়ে ৭ কোটি মানুষের জন্য ওই খাদ্য পর্যাপ্ত ছিল না। এর পরের ৪২ বছরে এখানে মানুষ বেড়েছে দিগুণের বেশি, আর আবাদি জমি কমেছে ২০ থেকে ৩০ শতাংশ। অথচ দেশে এখন খাদ্যশস্য উৎপাদন হচ্ছে তিন গুণ বেশি, ভুট্টাসহ এর পরিমাণ প্রায় ৪ কোটি মেট্রিক টন (প্রথম আলো, নভেম্বর ২০১৩)। বাংলাদেশে ৩-৪ বছর ধরে আবহাওয়ার অনুকূল পরিবেশ বিদ্যমান থাকা এবং মাঠ পর্যায়ে কৃষি বিভাগের তৎপরতায় কৃষক ভালো বীজ, জমিতে সুষম সারের ব্যবহার বৃদ্ধি ও পরিমিত সেচের কারণে বর্তমানে পর্যাপ্ত ধান উৎপাদন হচ্ছে। তবে কৃষি গবেষকদের মতে, টেকসই খাদ্য নিরাপত্তার জন্য এ মুহূর্তে ধানের আবাদ কমানো যাবে না। প্রধান ফসল ধানের আবাদ ঠিক রেখে অন্যান্য ফসলের (গম, ভুট্টা, ডাল, তৈল, সবজি) আবাদ বৃদ্ধি করতে হবে (বিএইউ-গবেষণা প্রতিবেদন-২০১৩)।
 
বাংলাদেশ ছাড়া পৃথিবীর অন্যান্য দেশে চালের মূল্য বেশি অথচ এ দানাদার খাদ্যশস্য চাল আমরা সবচেয়ে বেশি পরিমাণে খেয়ে থাকি। বাংলাদেশে প্রতিজন প্রতি বছর চাল খায় ১৬৫-১৮৩ কেজি, ভারত-১১৪ কেজি, ইন্দোনেশিয়া-১০৪ কেজি, শ্রীলঙ্কা-৮৩ কেজি, চীন, কোরিয়া, জাপান ৪০-৪৫ কেজি। এক পরিসংখানে বলা হয়েছে, দৈনিক মাত্র ৫০ গ্রাম করে চাল কম খেলে বাংলাদেশে ২৮ লাখ মেট্রিক টন আর ১০০ গ্রাম করে কম খেলে ৫৬ লাখ মেট্রিক টন চাল উদ্বৃত্ত থাকে। এতে খাদ্য আমদানি করাত দূরে থাক বরং খাদ্য রপ্তানি করা যাবে।
 
অন্যদিকে ভিটামিন, খনিজ লবণের ঘাটতি পূরণ, সুস্থ কর্মক্ষম রোগব্যাধিমুক্ত জীবন গড়তে ফল-মূল, শাকসবজির ভূমিকা অপরিসীম। পৃথিবীতে সবচেয়ে বেশি সবজি খায় দক্ষিণ কোরিয়া-৬৮৬ গ্রাম, জাপান-৪৫০ গ্রাম, চীন-২৯০ গ্রাম, ভারত-১২৪ গ্রাম, বাংলাদেশ খায় মাত্র ৪৭ গ্রাম/জন/প্রতিদিন। ফল দেহে আনে বল, ভিটামিনের একমাত্র উৎস। প্রতিদিন একজন লোকের ১১৫-১২০ গ্রাম ফল খাওয়া দরকার। আমাদের দেশে মাথাপিছু ফলের উৎপাদন প্রায় ৩৫-৪০ গ্রাম, ভারতে উৎপাদন ১১১ গ্রাম, ফিলিপাইনে উৎপাদন হয় ১২৩ গ্রাম, থাইল্যান্ডে উৎপাদন হয় ২৮৭ গ্রাম। এর পরিপেক্ষিতে আমাদের প্রচলিত ফলের সঙ্গে সঙ্গে হারিয়ে যাওয়া অপ্রচলিত ফল যেমন- আতা, কদবেল, শরিফা, সফেদা, লটকন, ডেউয়া, গাব, কাউফল, ক্ষুদিজাম ইত্যাদি ফলের আবাদ বৃদ্ধি করতে হবে।
 
বাংলাদেশে বর্তমানে বছরে ৮০ লাখ  মেট্রিক টন আলু উৎপাদন হয়। সংরক্ষণের অভাবে এর উল্লেখযোগ্য অংশ নষ্ট হয়। পৃথিবীর অনেক দেশ যেমন-ডেনমার্ক, হল্যান্ড, ব্রাজিলের জনগণ প্রধান খাদ্য হিসেবে আলু খেয়ে থাকে। আমরা ১০০ গ্রাম চালের পরিবর্তে আলুসহ অন্যান্য সবজি ও ফল খাদ্য তালিকায় প্রতিস্থাপন করতে পারলে চালের ওপর অনেকাংশে চাপ কমবে। আর এর জন্য প্রয়োজন একটু সচেতনা বৃদ্ধি, মানসিকতা এবং খাদ্যাভাসের পরিবর্তন।
 
মাটির স্বাস্থ্য নির্ভর করে মাটির মধ্যে বিদ্যমান পানি, বায়ু আর জৈব উপাদানের ওপর। আর এসব নির্ভর করছে মাটির নিচে বসবাসরত অনুজীব সমষ্টির ওপর। অপরিকল্পিতভাবে রাসায়নিক সার, বালাইনাশক ও আগাছানাশক ব্যবহারের ফলে এ অনুজীব ক্রমান্বয়ে হারিয়ে যাচ্ছে। শুধু মাটির অনুজীব বা মাটির স্বাস্থ্য নয়, ধ্বংস হচ্ছে জীবচৈত্র্যসহ পরিবেশের। ফসলের জমিতে ক্রমাগত আগাছানাশক ব্যবহারের ফলে মাটির উর্বরতা হ্রাসসহ ফসলের ফলন কমে যাচ্ছে। নিবিড় ফসল ও ফল চাষে ব্যবহৃত হচ্ছে রাসায়নিক সার। মাটির প্রাণ হচ্ছে জৈবসার। জৈব পদার্থ হারিয়ে মাটি অনুর্বর ও অনুৎপাদনশীল হয়ে পড়ছে। মাটিতে ৫% জৈব পদার্থ থাকা দরকার কিন্তু মাটি পরীক্ষা করে দেখা গেছে জৈব পদার্থ রয়েছে শতকরা ০.৫ - ১.০ ভাগ বা তারও কম। জমির আদর্শ খাদ্য হলো গোবর সার, দেশের অনেক এলাকায় এই আদর্শ গোবর সার জমিতে প্রয়োগের পরিবর্তে রান্নার কাজে ব্যবহার করা হচ্ছে। ডেনমার্কসহ অনেক উন্নত দেশে মাটির জৈব পদার্থ সংরক্ষণের জন্য জমিতে গোবরসার ব্যবহার বাধ্যতামূলক। বলা হয় ‘সবার আগে জৈব সার তারপর অন্য সার’ আমরা চলছি উল্টো পথে।
 
অপরিকল্পিত বালাইনাশক ব্যবহারের ফলে পোকামাকড়, রোগবালাইয়ের প্রাকৃতিক শত্রু, বন্ধু পোকা ধবংস হচ্ছে। শত্রু পোকার বালাইনাশক সহনশীলতা বৃদ্ধি পাচ্ছে। ফলে কম ক্ষতিকারক নিম্ন প্রজাতির পোকামাকড় ক্ষতিকারক হিসেবে আত্ম প্রকাশ করছে। ফসলে যথেচ্ছা কীটনাশক ব্যবহার, ফলে ও মাছে বিভিন্ন ক্ষতিকারক রাসায়নিক দ্রব্য মেশানোর ফলস্বরূপ মানবদেহে সৃষ্টি হচ্ছে- ব্লাড ক্যান্সার, ব্রেন ক্যান্সার, ব্রেস্ট ক্যান্সার, লিভার ক্যান্সার, ফুসফুস ক্যান্সার ইত্যাদি। খাদ্যে ভেজালের কারণে গ্যাসট্রিক, আলসার, হৃদরোগ, অন্ধত্ব, কিডনি রোগ, স্নায়ু রোগ প্রভৃতি জটিল রোগে আক্রান্ত হচ্ছে মানুষ। মানুষসহ অন্যান্য প্রাণী আজ অসহায় হয়ে পড়ছে। পরিবেশ বাঁচাও আন্দোলনের  বিষাক্ত খাদ্য জনস্বাস্থের জন্য হুমকি শীর্ষক সেমিনারে বলা হয় শুধুুমাত্র ভেজাল খাদ্য গ্রহণের ফলে দেশে প্রতি বছর প্রায় ৩ লাখ লোক ক্যান্সারে আক্রান্ত হচ্ছে। ডায়াবেটিসে আক্রান্তের সংখ্যা ১ লাখ ৫০ হাজার, কিডনি রোগের আক্রান্তের সংখ্যা ২ লাখ। এছাড়া গর্ভবতী মায়ের শারীরিক জটিলতাসহ গর্ভজাত বিকালঙ্গ শিশুর সংখ্যা প্রায় ১৫ লাখ। যাহা এক কথায় ভয়াবহ (বাংলাদেশ প্রতিদিন-২৬ অক্টোবর ২০১৪)। বাতাসে সিসা, পানিতে- আর্সেনিক, চালে- ক্যাডনিয়াম, মাছে- ফরমালিন, ফলে- কার্বাইড, ফলের রসে ও বিস্কিটে বিভিন্ন ইন্ডাসট্রিয়াল- রঙ, সবজিতে কীটনাশক, মুরগির মাংসে- ক্রোমিয়াম সর্বদিকে বিষ আর বিষ আমরা যাব কোথায়?
 
শস্য উৎপাদন বৃদ্ধি ও পোকামাকড়ের আক্রমণ থেকে ফসল রক্ষার জন্য ৭০এর দশকে এদেশে সার ও কীটনাশক ব্যবহার শুরু হয়। ফসল আবাদ বৃদ্ধির কারনে প্রয়োজনের অতিরিক্ত সার ও কীটনাশক ব্যবহার দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। দেশের অনেক শিল্পাঞ্চল এলাকার উত্তম আবাদি জমি আজ পরিবেশ দূষণের মারাত্মক শিকার। কলকারখানার অপরিশোধিত বর্জ্য গিয়ে মিশছে নদী-নালা, খাল-বিলে। খাল-বিলের পানি ব্যবহৃত হচেছ জলাশয়ের আশপাশের আবাদি জমিতে। আবাদি জমি হারাচ্ছে উর্বরতা ও উৎপাদনশীলতা। শিল্পের বর্জ্যরে মাধ্যমে এসব এলাকার মাটিতে জমা হচ্ছে ভারি ধাতব বস্তু (লেড, ক্যাডনিয়াম, ক্রোমিয়াম)। যার পরিপ্রেক্ষিতে ওইসব এলাকার উৎপাদিত চালে ক্যাডনিয়াম পাওয়া যাচ্ছে।
 
‘বেশি ওষুধ বেশি পোকা, কম ওষুধ কম পোকা’-এ প্রতিপাদ্য বিষয় নিয়ে আইপিএম, আইসিএম বর্তমানে আইএফএম  বিষয়ে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত ক্লাবের সদস্যদের প্রচার-প্রচারণা ও মাঠ পর্যায়ে কৃষি কর্মকর্তাদের তদারকির ফলেই বালাইনাশকের ব্যবহার কমতে শুরু করেছে। আশার কথা হলো, সারা দেশে যেখানে ২০০৮ সালে দেশে বালাইনাশক ব্যবহার হয়েছিল ৪৮ হাজার ৬৯০ মেট্রিক টন, ২০১২ সালে তা কমে দাঁড়িয়েছে ৪০ হাজার ৮৮২ মেট্রিক টন। সারা দেশে আইপিএম, আইসিএম ক্লাবের বর্তমান সংখ্যা ১০০০০টি এবং প্রশিক্ষিত কৃষক-কৃষানির সংখ্যা ৩০০০০০ জন। আগামীতে ২০০০০টি আইপিএম/আইএফএম ক্লাব স্থাপনের পরিকল্পনা রয়েছে। এসব কৃষক সংগঠনের মাধ্যমে কীটনাশকের জুডিশিয়াল/পরিমিত ব্যবহার, পরিবেশ রক্ষায় কীটনাশকের পরিবর্তে সবজিতে ফেরোমেন ট্রাপ, ব্রাকন, ট্রাইকোগামা (উপকারী অনুজীব দ্বারা ক্ষতিকর পোকা দমন) ব্যবহার বৃদ্ধি করা, ধানের জমিতে পার্চিং করা ও  ফল পাকানোতে প্রাকৃতিক পদ্ধতি অবলন্বন  করে ক্ষতিকারক রাসায়নিক দ্রব্য মিশানো পরিহার এবং এর ক্ষতিকারক প্রভাব সম্পর্কে পত্রপ্রত্রিকায় ও রেডিও-টেলিভিশনে ব্যাপক প্রচার করতে হবে। আমাদের বাঁচার তাগিদেই এ ধারা অব্যাহত রাখতে হবে।
 
একদিকে আবাদি জমি কমে যাচ্ছে, অন্যদিকে ফসলি জমিতে বেআইনিভাবে ইটভাটা স্থাপন করায় তার কালো ধোঁয়া আশপাশের ফসলি জমি ও গাছ পালার ওপর বিরূপ প্রভাব ফেলছে। প্রতি বছর কোথাও না কোথাও ধানে চিটা, ফসলহানীসহ ফল গাছে ফলশূন্য হওয়ার অনাকাক্সিক্ষত ঘটছে। গত ২০১৩ সালে সিরাজগঞ্জের কামারখন্দ ও তাড়াশ উপজেলার বোরো ধানের জমি এতে অক্রান্ত হয়েছে। আমাদের কৃষি প্রকৃতি এখনও জলবায়ুর ওপর নির্ভরশীল।  বৈশ্বিক জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে কৃষি ওপর পড়ছে মারাত্মক নেতিবাচক প্রভাব। এর ফলে শুরু হয়েছে অতিবৃষ্টি, অনাবৃষ্টি, অসময়ে বৃষ্টি, বন্যা, খরা, জলোচ্ছ্বাস ভূমিকম্প ইত্যাদি প্রাকৃতিক দুর্যোগ।
 
নদ-নদীর উৎস পথে বা তার গতিপথে বাধা সৃষ্টিকারী বাঁধ পানির স্বল্পতাসহ খরার সৃষ্টি করছে। উজানে বিভিন্ন অপরিকল্পিত বাঁধ ভাটিতে মারাত্মক নেতিবাচক প্রভাব ফেলছে। এর কারণে বাংলাদেশে কৃষি, মৎস্য ও পরিবেশ ধ্বংসের মুখে পতিত হচ্ছে। শুধু তাই নয় সমুদ্রের পানির উজানমুখী ধাক্কা বাড়ছে। কারণ খরার সময় উজানের পানি প্রবাহ বাধার কারণে নদীতে পানির পরিমাণ কমে যাচ্ছে। ভূগর্ভস্থ পানির স্তর নিচে নামার কারণে এবছর বরেন্দ্র অঞ্চলসহ সিরাজগঞ্জের তাড়াশ, রায়গঞ্জ, উল্লাপাড়া উপজেলার ৩৮০টি অগভীর নলকূপ ৮-১০ ফুট গভীরে স্থাপন করে সেচ প্রদান করা হয়েছে। সিরাজগঞ্জ জেলায় চরাঞ্চলের পরিমাণ প্রায় ৪৪,০০০ হেক্টর (২৪%) যাহা নদীর নাব্যর কারণে প্রতি বছর বেড়েই চলেছে।
 
নদীতে পানির পরিমাণ কমে যাওয়ার ফলে দেশের দক্ষিণাঞ্চলের বিস্তৃর্ণ এলাকা লবণাক্ততায় ভরে যাচ্ছে। বর্তমানে বাংলাদেশে ১০ লাখ হেক্টর জমি লবণাক্ত আক্রান্ত। তার মধ্যে মাত্র ২,৫০,০০০ হেক্টর জমিতে লবণসহিষ্ণু ফসল চাষাবাদ সম্ভব হচ্ছে। বাকি জমি এখনও চাষাবাদের আওতায় আনা সম্ভব হয়নি। বাংলাদেশের ১২টি জেলায় লবণাক্ততার প্রভাবে স্বাভাবিক চাষাবাদ হয় না। ২০০৭ সালে সিডর, ২০০৯ সালে আইলা বাংলাদেশের দক্ষিণাঞ্চলের জমি লবণাক্রান্ত হয়ে ব্যাপক ক্ষতি সাধন করেছে। যাহা এখনও কাটিয়ে উঠা সম্ভব হয়নি।

তাপমাত্রা ও উষ্ণতা রোধে এবং পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় বৃক্ষরোপণের বিকল্প নেই। একটি দেশের মোট আয়তনের ২৫% গাছপালা/বন থাকা দরকার, আমাদের দেশে রয়েছে বর্তমানে মাত্র ১০-১২%। এ সমস্যা উত্তরণের জন্য সরকার বৃক্ষরোপণের ওপর অত্যধিক জোর দিয়েছেন। কিন্তু কিছু আগ্রাসী প্রজাতির গাছ আমাদের দেশকে মরুময়তার দিকে নিয়ে যাচ্ছে। সারা দেশে রাস্তার দুইপাশে কড়াই গাছ বিশেষ করে সিরাজগঞ্জে ইউক্যালিপটাস গাছ বাগান আকারে চাষ করা হচ্ছে। যে গাছে পাখি বাসা বাঁধে না, মৌমাছি মধু আহরণ করে না এবং আমাদের ভূ-নিম্নস্থ পানি ব্যাপক শোষণ করে উড়িয়ে দিয়ে দ্রুত মরুময়তার দিকে নিয়ে যাচ্ছে। ভূগর্ভস্থ পানির স্তর ক্রমাগতভাবে নিম্নমুখী হচ্ছে, ফলশ্রুতিতে পানিতে আর্সেনিকসহ অন্যান্য বিষাক্ত পদার্থের পরিমাণ বৃদ্ধি পাচ্ছে। তারপরও যদি এ প্রজাতির গাছ লাগানোর প্রবণতা বৃদ্ধি পেতে থাকে, তবে আমাদের ভবিষ্যৎ কোথায় যাবে তাহা সহজেই অনুমেয়। অথচ আমরা এর পরিবর্তে বেলজিয়াম, একাশিয়া, ইপিল-ইপিল, মেহগনি ইত্যাদি কাঠের গাছের সাথে ফল গাছ (আম, জাম, কলা, লিচু, পেয়ারা, কাঁঠাল, তাল, খেজুর ইত্যাদি) লাগিয়ে একদিকে পরিবেশের উন্নতি সাধন অন্যদিকে ফলের চাহিদা ও পূরণ করতে পারি।

 
বাংলাদেশে বছরে প্রায় ১১ লাখ মেট্রিক টন বীজ ব্যবহার হয় তার মধ্যে বিএডিসি সরবরাহ করে মাত্র ধানের ৩৫-৪০ ভাগ এবং অন্যান্য ফসলের মাত্র ১০-১২ ভাগ। সরকার কৃষক ভালো মানের বীজ সরববাহের লক্ষ্যে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের মাধ্যমে (ডিএই) কৃষক পর্যায়ে ভিত্তি বীজের প্রদর্শনী স্থাপন করে এ সমস্যার সমাধান করার চেষ্টা করছে। কৃষক পর্যায়ে উৎপাদিত এ বীজ দিয়ে বর্তমানে প্রায় ৭০ ভাগ উন্নত মানের ধান বীজের চাহিদা মেটানো সম্ভব হয়েছে। সরকারের নন ইউরিয়া সারের মূল্য কমানো এবং কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের তদারকির ফলে বর্তমানে জমিতে সুষম সারের ব্যবহার বৃদ্ধি পেয়েছে। ফলে গত ৫ বছর ধরে কৃষি উৎপাদন বৃদ্ধি পাচ্ছে। যার ফল স্বরূগত ৩ বছর ধরে এক টন চালও বিদেশ থেকে আমদানি করতে হয়নি। এত প্রতিকূল পরিবেশেও কৃষি উৎপাদন গত ৫ বছর শক্ত ভিত্তির ওপর দাঁড়িয়েছে ফলে বাংলাদেশের অর্থনীতি বৈশ্বিক মন্দা সত্ত্বেও অনেক উন্নত দেশের তুলনায় ভালো অবস্থানে আছে।
 
নার্স কর্তৃক আয়োজিত ‘খাদ্য নিরাপত্তায় বিজ্ঞান-সেমিনার-২০১০’ সালের একটা গবেষণায় দেখা গেছে, জনসংখ্যা বর্তমান হারে বৃদ্ধি পেতে থাকলে এবং খাদ্য গ্রহণ ৪৫৪ গ্রাম/জন/দিন হিসেবে আগামী ২০২৫ সালে বাংলাদেশের লোক সংখ্যা দাঁড়াবে ১৯ কোটি, খাদ্যের প্রয়োজন হবে ৩ কোটি ১৫ লাখ মেট্রিক টন। আর ২০৫০ সালে লোকসংখ্যা দাঁড়াবে ২৫ কোটি এবং খাদ্য চাহিদা দাঁড়াবে ৪ কোটি ২৫ লাখ মেট্রিক টন। সেই সাথে চাষযোগ্য জমির পরিমাণ দাড়াবে ২০২৫ সালে বর্তমানে ৮১ লাখ হেক্টর থেকে কমে ৬৯ লাখ হেক্টরে এবং ২০৫০ সালে দাঁড়াবে মাত্র ৪৮ লাখ হেক্টরে। সুতরাং এত অল্প পরিমাণ চাষযোগ্য জমিতে ৪.২৫ কোটি মেট্রিক টন চাল উৎপাদন করা একটি বড় চ্যালেঞ্জ। অতএব এখন থেকে জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ, পুষ্টি সমুন্নত রেখে খাদ্যাভাস পরিবর্তন এবং সঠিক পরিকল্পনা প্রণয়ন করে এ চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে হবে।
 
উপসংহার
আমরা জানি কৃষিতে নানাবিধ সমস্যা আছে যার সমাধান ও রয়েছে। আমরা কৃষিতে অনেক দেশের চেয়ে ভালো অবস্থানে রয়েছি। আমাদের চাল উৎপাদন যথেষ্ট যা ধরে রাখতে হবে। শ্রীলঙ্কতে এবছর ১ লাখ টন চাল রপ্তানি হচ্ছে। তাপমাত্রা সহিষ্ণুু গমের জাত উদ্ভাবনের ফলে গমের আবাদ বৃদ্ধি হচ্ছে। বর্তমানে বাংলাদেশে প্রায় ৩৫ লাখ টন গমের চাহিদা রয়েছে, উৎপাদন হচ্ছে মাত্র ১১-১২ লাখ টন। যার জন্য খাদ্যশস্য হিসেবে প্রতি বছর প্রায় ২৫ লাখ টন গম আমদানি করতে হচেছ। বর্তমানে বাংলাদেশে প্রায় ৮০ লাখ টন আলু উৎপাদন হচ্ছে। দেশের চাহিদা পূরণ করে স্বল্প পরিসরে বিদেশে আলু রপ্তানি হচ্ছে। এ মহূর্তে সবজি ও ফলের ব্যবহার বৃদ্ধি করতে হবে এবং উৎপাদন বাড়াতে হবে। ডাল ও তেল জাতীয় ফসলে আমরা অনেক পিছিয়ে আছি। ভোজ্যতেলের প্রায় ৭০% ভাগ আমদানি করতে হচ্ছে। অবশ্য বর্তমানে ধানের কুড়া থেকে রাইস বার্ন অয়েল উৎপাদনের ফলে সয়াবিন তৈরি আমদানি দিন দিন কমে যাচেছ। সরিষার আবাদ বৃদ্ধির চেষ্টা চলছে। নতুন নতুন সরিষার জাত উদ্ভাবিত হয়েছে যা উৎপাদন বৃদ্ধিতে সহায়ক ভূমিকা পালন করছে। ডালের নতুন নতুন জাত উদ্ভাবনের ফলে ডাল জাতীয় ফসলের উৎপাদন এরই মধ্যে উল্লেখযোগ্য পরিমাণে বৃদ্ধি পেয়েছে। ফলে ডালের মূল্য ও আমদানির পরিমাণ কমেছে। এ সময়ে চাহিদার ৫০% ডাল দেশে উৎপাদন হচ্ছে। চাষিরা মূল্য পাওয়ায় পেঁয়াজ-রসুনের আবাদ ও উৎপাদন বেড়েছে এবং আমদানিও কমেছে। সারা বছরব্যাপী ফল উৎপাদন বৃদ্ধি করার লক্ষ্যে কলা, পেঁপে, থাই পেয়ারা, আপেল কুল চাষ বেড়েছে। আংশিক বৃষ্টি নির্ভর আউশ ও পুরো বৃষ্টি নির্ভর রোপা আমন চাষে সরকার কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। ব্যবসায়িক ভিত্তিতে কৃষি খামার স্থাপন, খামার যান্ত্রিকীকরণ ও সরকারের কার্যকরী পদক্ষেপ এবং কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের নিরলস প্রচেষ্টা বর্তমান কৃষিকে একটি টেকসই ও সমৃদ্ধ অবস্থানে নিয়ে যাবে। যেখানে কৃষি, কৃষক ও শ্রমিকদের স্বার্থ রক্ষিত হবে এবং বাংলাদেশের অর্থনীতির চাকাকে আর ও গতিশীল করে সমৃদ্ধ সোনার বাংলা গড়ে তুলতে সাহায্য করবে।
 
ড.  মো. দেলোয়ার হোসেন মজুমদার*
* শস্য উৎপাদন বিশেষজ্ঞ, ডিএই, সিরাজগঞ্জ, মোবাইল-০১৮১৫৫৯৭৩০৪ dhossain1960@yahoo.com
বিস্তারিত
নীল আর নীলকষ্ট নয়...
ইতিহাস বলে বাঙালিদের প্রধান ফসলই ছিল ধান আর পাট। নীল চাষ তারা কখনও করেনি, করার দরকারও পড়েনি। কারণ এর ব্যবহারিক প্রয়োজন তাদের খুব বেশি ছিল না। কিন্তু সে সময় পৃথিবীর অন্যত্র নীলের চাহিদা ছিল ব্যাপক। বর্তমানে বৈজ্ঞানিক প্রণালিতে নীল রঙ প্রস্তুত হলেও এটি আবিষ্কারের আগে গাছ থেকে নীল সংগ্রহ করা হতো। ভারতবর্ষের মাটি উর্বর থাকায় ১৬০০ খ্রিস্টাব্দ থেকেই ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি এখানে নীল চাষ করাত। ১৭৫৭ খ্রিস্টাব্দের পর ভারতের শাসন ক্ষমতা ইংরেজরা গ্রহণ করলে ১৭৭৯ খ্রিস্টাব্দে এ কোম্পানি সবাইকে নীল চাষ করার এলান জারি করে। এ এলান জারির অধিকার পেয়েও ভারতীয়রা নীল চাষে তেমন আগ্রহী হয়নি। সে সময় শ্বেতাঙ্গ ইংরেজ ব্যবসায়ীরা অনেকে বঙ্গদেশ ও বিহারের নীল চাষিদের দিয়ে জোর করে নীল চাষ করিয়ে বিদেশে রফতানি করত। এতে লাভ ছিল ব্যাপক। কালক্রমে নীল ব্যবসায়ী ইংরেজরা গ্রামে কুঠি স্থাপন করে নীল চাষ তদারকি করত। সে কুঠিই নীলকুঠি নামে এখনও বাংলার আনাচে কানাচে কষ্টস্মৃতির মিনার হিসেবে ইতিহাসের নীরব কান্না বহন করছে। নীল চাষ করে কোথাও কোথাও তারা এত অর্থ ও প্রতিপত্তি সম্পন্ন হয়ে ওঠে যে, স্থানীয় জমিদারদের জমিদারি পর্যন্ত তারা কিনে নেয়। এরপর অনিচ্ছুক চাষিদের নীল চাষে বাধ্য করে, ভালো উর্বর জমিতে নীল চাষ করার জন্য জবরদস্তি করে খুঁটি পুঁতে আসে, এমন কি নীল সংগ্রহ ও কেনার সময় সব অর্থ পরিশোধও করত না। উপরন্তু তারা তাদের পেয়াদা ও লাঠিয়ালদের দিয়ে দৈহিক নির্মম নির্যাতন করা হতো গরিব চাষিদের। এ ক্ষমতাসম্পন্ন ব্যবসায়ী সম্প্রদায়ই নীলকর নামে পরিচিত, যাদের অত্যাচারে বহু বিত্তশালী গৃহস্থ গ্রাম ছেড়ে পালিয়েছে, অনেক স্থানীয় যুবতী তাদের সম্ভ্রম রক্ষা করতে ব্যর্থ হয়, বহু প্রতিবাদী মানুষ জীবন হারিয়েছে।
 
১৮৪৭ থেকে ১৮৫৭ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত বিশ্ববাজারে নীলের দাম প্রায় দ্বিগুণ বাড়লেও চাষি ও কৃষক ন্যায্যমূল্য পেতো না। কারণ তাদের ক্রেতা ছিল একমাত্র নীলকর ইংরেজ। এ সময় ভাটির বাংলার প্রায় অর্ধেক নীল উৎপাদিত হতো বঙ্গদেশের নদীয়া ও যশোর জেলায়। প্রাণভয়ে কৃষক নীল চাষ করত কিন্তু তাতে অন্য যে কোনো ফসলের তুলনায় তাদের তৎকালীন ৭ টাকা ক্ষতি হতো। এছাড়া কুঠির কর্মচারী, নীলকরদের সঙ্গে বিক্রির মধ্যস্থতাকারী চামচাদের ঘুষ ছিল অতিরিক্ত সাধ্যাতিত। আর যদি মামলায় পড়ে যেত তবে আর রক্ষে নেই আরও বড় অঙ্কের খরচ হয়রানি কষ্টযন্ত্রণা। ব্রিটিশ বেনিয়ারা আমাদের কৃষক তাদের আবাদি ফসল ফলানো বাদ রেখে নিজেদের লাভের জন্য সুন্দর চাকচিক্যের বিলাসিতার জন্য জোর করে নীল চাষ করাত। নীল চাষ না করলে তাদের কঠিন কঠোর অত্যাচার আর অমানসিক নির্যাতন করত। সে কষ্টের ইতিহাস এখনও বয়ে বেড়ায় বাংলার কিছু মানুষ মননে মেধায় স্মৃতিতে বৃতিতে।
 
যদিও দেশের কোথাও আজ নীলকর সাহেবদের পাওয়া যাবে না, তথাপি রংপুর জেলায় বিভিন্ন এলাকায় নীল চাষের দেখা পাওয়া যায় ভিন্ন আঙ্গিকে। ইংরেজরা চলে যাওয়ার পরও বহু বছর ধরে বংশপরম্পরায় চাষ হয়ে আসছে নীল। অনুর্বর জমিকে উর্বর করতে ও জ্বালানি সংস্থান আর জৈবসার তৈরির জন্য স্থানীয়ভাবে পরিচিত ‘মাল’ গাছ বালুময় অনুর্বর পতিত জমি যেখানে সাধারণত কোন ফসল হতে চায় না এবং রাস্তার ধারের ফাঁকা জায়গায় লাগানো হয়। অনেকটা রাস্তার পাশের অড়হর গাছ লাগানোর মতো। এ মাল গাছই যে নীলের গাছ তা অনেকেই জানতও না। প্রায় ১৫০ বছরের কষ্টের পরিক্রমা। ১৮৫৯ সনে নীল চাষিদের বিদ্রোহ এখনও জগৎ নাড়া দেয়ার মতো অনুভূতি জাগায় আজো প্রাণের অলিন্দে। আমাদের পূর্বপুরুষদের কষ্টগাথা নিয়ে কত কাব্যকথা প্রকাশিত হয়েছে। ২০০৫ সন সর্বপ্রথম জানা যায়, এ গাছ থেকে প্রাকৃতিক নীল সংগ্রহ করা যায়। আর আধাবাণিজ্যিকভাবে নীল উৎপাদন শুরু হয় ২০০৭ সনে রংপুর সদরের হরকলি ঠাকুরপাড়া গ্রামের ডা. অনীল কুমার রায়ের ছেলে ডা. নিখিল চন্দ্র রায়ের হাত ধরে। রংপুর জেলার সদর, তারাগঞ্জ, গঙ্গাচড়া ও নীলফামারী জেলা কিশোরগঞ্জ উপজেলা প্রায় ১০০ হেক্টর জমিতে প্রায় ১৩ হাজার কৃষক নীল চাষ করছেন বিভিন্ন আঙ্গিকে। ৩/৪ বছর আগেও প্রায় ২০০ হেক্টর জমিতে আবাদ হতো। মাঝে নীল উৎপাদনকারী কারখানা বন্ধ থাকায় এর আবাদ কমে যায়। বন্ধ কারখানা চালু হওয়ায় এখন নীল চাষে নতুন উদ্যোম সৃষ্টি ও গতি সঞ্চার হয়েছে।
 
কথায় বলে জাত মাছে পাদরি ধরে, ভাত মাছে নীল বাঁদরে। বড় কষ্ট নিয়ে ছড়াটা বানিয়েছিল নীল চাষিরা। এ ছড়া শোনানো সে দীনবন্ধু মিত্রও আর নেই, নেই নীল বাঁদরেরাও। ভারতজুড়ে চাষিদের বিদ্রোহের মুখে নীলকর সাহেবের ল্যাজ গুটিয়েছিল প্রায় ১৫০ বছর আগে। এরপর ধীরে ধীরে ইতিহাসের ঘৃণিত অংশ হয়ে গেছে খোদ ব্রিটিশ শাসকেরাই। ধুলোর নিচে চাপা পড়ে গেছে নীলকর সাহেবদের অত্যাচার। স্মৃতির চাদরের ভাজে ভাজে জমা হয়েছে কষ্টকথা। বাংলা থেকে নীল চাষও কি হারিয়ে গেছে? না আবার ফিরে এসেছে নীল, নীল, নীল চাষ। আবার বাংলাদেশের জমিতে নীলগাছ লক লক করে উঠে জানান দিচ্ছে নীল আছে আজো। কিন্তু এবার আর এ চাষের পেছনে হাত নেই নীল বাঁদরদের। এবার আর কারও পিঠে শ্যামচাঁদের বাড়ি দিয়ে চাষ করানো হচ্ছে না। মঙ্গাপীড়িত উত্তরবঙ্গে আশীর্বাদ হয়ে আবির্ভূত হয়েছে নীল চাষ। ক’বছর আগে শুরু হওয়া নীল চাষ নতুন স্বপ্ন দেখাচ্ছে গরিব কৃষককে। এরাই নীলগাছের নাম দিয়েছে মাল গাছ। সারা পৃথিবীতেই এখন প্রাকৃতিক রঙের কদর অনেক বেশি। রাসায়নিক রঙের পারিবেশ বিনষ্টকারী প্রভাব সম্পর্কে পরিবেশবিদেরা এখন সরব। ফলে তৈরি হচ্ছে ট্রু বেঙ্গল ইন্ডিগোর মতো প্রাকৃতিক রঙের চাহিদা। জরিপ বলে শুধু ভারতেই প্রতি বছর দরকার হয় ৩০০ মেট্রিক নীলের। সবচেয়ে ভালো নীলের প্রতি কেজি আন্তর্জাতিক বাজারে প্রায় ২৫ হাজার টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। দুনিয়াজুড়ে নীলের মূল বেশির ভাগ চাহিদা মিটিয়ে আসছে এল সালভাদর। কিন্তু উত্তরবঙ্গের চাষিরা স্বপ্ন দেখছেন তাদের উৎপাদন দেশ ছাড়িয়ে বিদেশে যাবে দেশের আয় হবে। তারা আন্তর্জাতিক বাজারে গর্বিত বড় প্রতিদ্বন্দ্বী হবেন যে কোনো দেশের। রংপুরের সদর উপজেলা, পাগলান্দীর, কিশোরগঞ্জ ও জলঢাকার ব্যাপক এলাকায় কৃষক আগে থেকেই মাল বা নীলের চাষ করতেন। উদ্দেশ্য রঙ তৈরি নয়। জমিতে উর্বরতা বাড়ানো আর গাছগুলো শুকিয়ে জ্বালানির প্রয়োজন মেটানোর জন্য। ক’বছর আগে বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা এমসিসির উদ্যোগে রঙ তৈরির জন্য নীল চাষ শুরু হয়। বদলে যেতে থাকে পরিস্থিতি। রংপুরে বর্তমানে প্রতি বছর প্রায় ২ হাজার কেজির বেশি প্রাকৃতিক নীল উৎপাদিত হচ্ছে যা দেশে চাহিদার বড় অংশ পূরণের পর বিদেশেও রফতানি হচ্ছে। বিপুল সম্ভাবনা নিয়ে আবার ফিরে আসা নীল চাষ এখন স্বপ্ন দেখাচ্ছে হতদরিদ্র মঞ্জুরানী, বিমলা, কৃষ্ণা, মিথিলা, রাখাল, তৈমুর, মেহেদী, আরজু বা বুলু মিয়ার মতো লোকদের। এ মানুষই আগে জুলাই-আগস্টে মঙ্গার প্রস্তুতি নিতেন কষ্টজাগানিয়া রাত পোহানোর জন্য। আর সে সময়ের কষ্টের রাত পোহানোর পর এখন এ এলাকার মানুষগুলো ব্যস্ত নিজেদের নীল উৎপাদন প্রক্রিয়া চালানোর কাজে।
 
তাদের মধ্যে কেউ নীলগাছ চাষ করছেন কেউ পাতা সংগ্রহ করছেন আবার কেউ ব্যস্ত সে পাতা প্রক্রিয়াজাতকরণে। লাভ শুধু নীল উৎপাদন করেই নয় কেন্দ্র থেকে যে নাইট্রোজেন ভরপুর বর্জ্য বেরিয়ে আসছে তা আবার ড্রামে ড্রামে চলে যাচ্ছে ফসলের মাঠে সোনালি ফসলের বাহারি ফলনের জন্য। কৃষক তা ব্যবহার করছে ইউরিয়া সারের বিকল্প পরিবেশবান্ধব জৈবসার হিসেবে। জমির মালিকেরা খুশি, চাষি খুশি, খুশি সবাই। খুশি নিজেদের তৈরি রঙ দিয়ে কাপড় রাঙানোয় যারা ব্যস্ত তারাও। রঙিন সে কাপড় চলে যাচ্ছে দেশে বিভিন্ন অঞ্চলে বহুমাত্রিক কাজের জন্য। তৈরি হচ্ছে কাঁথা, শাল ও স্কার্ফ। ইতিহাসের কী অপূর্ব পরিহাস এবং তার উল্লেখযোগ্য পুনরাবৃত্তি। যে নীল একদিন তাদের পেটের ভাত কেড়ে নিয়েছিল আজ সে নীল ফিরে এসেছে মঙ্গা তাড়িয়ে পুষ্টিসমৃদ্ধ সুখের নহর বইয়ে দিতে।
 
নীলে বহুমাত্রিক ব্যবহার : নীল সাধারণত সব ধরনের সুতি উলেন সিল্ক টাইপের জামা কাপড়ের রঙ উজ্জ্বল ঝকঝকে চকচকে করার জন্য ব্যবহার করা হয়। একজোড়া জামাকাপড় নীল দিতে ৩ থেকে ৭ গ্রাম নীলের প্রয়োজন হয়। সাধারণ হিসাবে জানা যায়, বছরে ২ মিলিয়ন কিলোগ্রাম নীল উৎপাদিত হয়। দেশের যে কোনো অনাবাদি পতিত জমিতে অনায়াসে নীল চাষ করা যায়। দেশের আনাচে কানাচে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা অনাবাদি পতিত অনুর্বর জমি পরিকল্পিতভাবে নীল চাষের আওতায় আনতে পারলে অভাবনীয় সফলতা আসতে পারে ঐতিহাসিক এ নীল চাষে আমাদের কৃষির বিশেষ সমৃদ্ধিতে। নীলের ব্যবহার শুধু নীল হিসেবেই নয়। নীলগাছ উৎকৃষ্ট জ্বালানি এবং জৈবসার। তাছাড়া নীল দেয়া জামা কাপড় পরলে বাতাসে ভাসমান বিভিন্ন ব্যাকটেরিয়া থেকে শরীরমুক্ত রাখা যায় এবং এলার্জি থেকে রক্ষা পাওয়া যায়। নীল চাষে পতিত অনাবাদি অনুর্বর জমি অর্থনৈতিক মূল্যে ব্যবহার করা যায়। নতুন ও বিশেষ কর্মসংস্থান সৃষ্টি করা যায়, উত্তরাঞ্চলের ফসলভিত্তিক সমস্যা থেকে রক্ষা পাওয়া যায়। নীল তামাকের সুবিকল্প প্রতিযোগিতামূলক ফসল হিসেবে অনায়াসে আবাদ করা যায়। নীল তেল ব্যবহার করে ব্যাকটেরিয়াজনিত সমস্যা থেকে শতভাগ রক্ষ পাওয়া যায়। ১ দিনের শিশু থেকে শতায়ু বছরের বয়স্কদের শরীরে অনায়াসে নীলতেল ব্যবহার করে শরীর ভালো রাখে। ডাইং ও গার্মেন্ট ফ্যাক্টরিতে বেশ আবশ্যকীয় উপকরণ হিসেবে নীল ব্যবহার আবশ্যকীয় অংশ। ইদানীং চুলে কলপ দেয়ার জন্য বেশ আয়েশিভাবে ব্যবহার বাড়ছে নীলের। নীল ব্যবহারে চামড়া ভালো থাকে, শরীরের উজ্জ্বলতা বাড়ে। নীল তেলের খৈল লোসন হিসেবে, সেভিং ফোম হিসেবে ব্যবহার দীর্ঘদিনের। দেহের ব্যথা উপশমে নীল ব্যবহৃত হয়। কেনিয়ার জনগণ নীলের ডাল দিয়ে দাঁত মাজেন দাঁতের রোগ থেকে উপশম পাওয়ার জন্য। কেউ কেউ পোকার আক্রমণ ও সাপের কামড়ে ব্যথায় বিষ কমানোর জন্য নীল ব্যবহার করেন। নীলের ওষুধ শিল্পে ব্যবহার রয়েছে বহুমাত্রিক। নীল গাছে কোনো সার দিতে হয় না। পোকা রোগে আক্রমণ তেমন করে না। বলতে গেলে কোনো যতœআত্তি করতে হয় না। গরু ছাগল হাঁস-মুরগি খায় না নষ্ট করে না। নীলের পরাগ রেণু মানুষের শ্বাসপ্রশ্বাসে শারীরিক গঠনে সহায়তা করে। নীল তামাকের শতভাগ বিকল্প চাষ হতে পারে লাভ, পরিবেশ আর সার্বিকতা চিন্তা করে।
 
নীলগাছের পরিচিতি : নীল (Indigoferra sp.) কে প্রাকৃতিক নীলও বলা হয়। পরিস্থিতির ওপর নির্ভর করে নীল সাধারণত মৌসুমি গাছ ৬ মাসের জীবনকাল বিশিষ্ট বৃক্ষ নয় তবে আধা শক্ত গুল্মজাতীয় উদ্ভিদ। ফেব্রুয়ারি মার্চ মাসে বীজ বপন করলে অক্টোবর নভেম্বরে গাছ মারা যায়। বর্ষায় পাতা ঝরে যায়। ১ থেকে ২ মিটার লম্বা ঝোপালো গাছ হয়। পাতা ওভাল গোল ও সমান্তরালভাবে সন্নিবেশিত। ফুল গোলাপি থেকে বেগুনি রঙের হয়। মাটির উর্বরতা শক্তি বাড়াতে এটা আচ্ছাদন ফসল হিসেবে চাষ করা হয়। অনুর্বর জমিতে অনাদরেই বেড়ে ওঠে নীল কষ্টের নীলকণ্ঠ। নীলের অন্তত ৭৫০টি প্রজাতি আছে বিশ্বময়। নীলগাছ উষ্ণ ও অবউষ্ণ অঞ্চলে বেশি জন্মে। তবে বেশি প্রচলিত জাত হলো Indigofera আর এরা Fabaceae পরিবারের অন্তর্ভুক্ত উদ্ভিদ। বিভিন্ন রকমের ফুল হয়। তবে লাল রঙের একটু ছায়া থাকে লালচে। তবে কিছু কিছু জাতের ফুল সাদা ও হলুদ রঙের। ফল ও বীজ সরিষার মতো। তবে জাতভেদে বিভিন্ন আকারের হয়। নীল বানানোর জন্য দুটো জাত বেশি উপযোগী। এ দুটো জাত হলো Indigofera tinctoria এবং Indigofera suffruticosa| পৃথিবীর কোনো কোন দেশে নীল তাদের দ্বিতীয় অর্থকরী ফসল হিসেবে পরিগণিত। নীল বা Indigo কে বলা হয় The color of Kings।
 
বীজ বপন : ফেব্রুয়ারি-মার্চ মূলত বীজ বপনের মূল সময়। অর্থাৎ আমাদের দেশে যখন পাট বপন করে তখনই নীলের বীজ বোনার সময় হয়। এক চাষ দিয়ে বীজ বপন করা হয়। তবে বেশির ভাগ ক্ষেত্রে বিনা চাষেই বীজ বপন করা হয়। প্রতি একরে ৪-৫ কেজি আর হেক্টরে ১০-১৫ কেজির বীজের প্রয়োজন হয়। নীলের বীজ অনেকটা সরিষার বীজের মতো। ছিটিয়ে বপন করা হয় অনেকটা ধইঞ্চা বা পাটের বীজে মতো।
 
পাতা কাটা ও প্রক্রিয়জাতকরণ : বীজ বপনের ৯০ দিন পর গাছ যখন একটু বড় হয় তখন প্রথমবার পাতা কাটা হয়। ওপর থেকে ১ দেড় ফুট শাখাসহ পাতা কেটে আনা হয়। এভাবে ১ বার কাটার পর ৬ মাস আয়ুকাল মৌসুমে অন্তত ৪-৫ বার পাতা কাটা যায়। পাতা সংগ্রহের পরও গাছের অবশিষ্ট অংশ জ্বালানি হিসেবে ব্যবহার করা হয়। বীজের গাছ থেকে নিয়মিত পাতা সংগ্রহ করা হয় না। প্রথমবার পাতা কাটার পর বীজ গাছকে আলাদা করে যত্নআত্তি করে রাখা হয় বীজ সংগ্রহের জন্য। নীল সংগ্রহ কোনো বিশেষায়িত পদ্ধতি নয়। জমি থেকে গাছের উপরের শাখাসহ নীল পাতা সংগ্রহ করে চৌবাচ্চাতে পরিমাণমতো পানিতে ডুবিয়ে রাখা হয় বা জাগ দেয়া হয়। পানি এ পরিমাণে হবে যেন পাতার উপর ১ ইঞ্চি পানি থাকে। এভাবে ২০ ঘণ্টা থেকে ২৪ ঘণ্টা জাগে ডুবিয়ে রাখা হয়। এরপর প্রথম চৌবাচ্চা থেকে পাতা ডালপালা ছেকে শুধু নীল পানি দ্বিতীয় চৌবাচ্চােেত নেয়া হয়। পাতা ডালপালা জৈবসার কিংবা জ্বালানি হিসেবে শুকিয়ে নেয়া হয় বা জমিতে সার হিসেবে ব্যবহার করা হয়। দ্বিতীয় চৌবাচ্চা থেকে ১ ঘণ্টা ঝাঁকানির পর প্রচুর ফেনা সৃষ্টি হয়। বর্তমানে অটোমেটিক পদ্ধতিতে পানি নাড়াচাড়া করা হচ্ছে। এরপর পরিমাণমতো কস্টিক সোডা (গোপন ফরমুলা) মিশিয়ে আবার অনবরত নাড়াচাড়া বা ঝাঁকানো হয়। কতক্ষণ পর পুরো দ্রবণকে মাঝারি আকারের ঝুড়ি নিয়ে তারমধ্যে মোটা মার্কিন কাপড় বিছিয়ে দিয়ে ছাকার জন্য ফেনাযুক্ত ঝাঁকানো দ্রবণ ঢালা হয় এবং ১ দিনের জন্য রেখে দেয়া হয়। এতে মার্কিন কাপড়ে তলানি জমা হয় আর থিতানো পানি আলাদা হয়ে যায়। মার্কিন কাপড়ের এ তলানিই নীল। ছাকা পানি গাছের গোড়ায় দেয়া হয় বা বাথরুম মেঝে পরিষ্কার করতে কার্যকরভাবে ব্যবহৃত হয়। এ পানিতে পা ডুবিয়ে রাখলে পা ফাটা বা পায়ের বিভিন্ন চর্মরোগ সংক্রান্ত সমস্যা দূর হয়। পানি ঝরে যাওয়ার পর মার্কিন কাপড় থেকে ছোট চামচের মাধ্যমে কাঁচিয়ে সংগ্রহ করা হয়। এ সেমিসলিড ভেজা শক্ত অংশ নীল রোদে শুকিয়ে দানাদার নীল তৈরি হয়। প্রথমে রোদে শুকালে নরম কয়লার মতো হয়। ১-২ দিন শুকালেই নীল শক্ত হয়। পরে গ্রাইন্ডিং মেশিনে বা হলারে বা পাটাপুতাতে পিশে গুঁড়া করে প্যাকেটজাত করে বাজারে বিক্রি করা হয়। সাধারণভাবে প্রতি প্যাকেট নীলের দাম আড়াই থেকে ৩ হাজার টাকায় বিক্রি হয়। তবে কৌশল আর আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করতে পারলে এ দাম কয়েক গুণ বেড়ে যাবে, লাভও বেশি হবে। অনেক সময় ছোট ছোট আস্ত টুকরা করে ৫ টাকা করে বিক্রি করা হয়।
 
প্রতিবারে প্রতি শতক জমি থেকে ৩০ থেকে ৩৫ কেজি পাতা সংগ্রহ করা যায়। প্রতি ১ একর জমি থেকে ৫ হাজার থেকে ১৫ হাজার কেজি পাতা কাটা যায়। প্রতি কেজি পাতা মূল্য ২ থেকে ৩ টাকা হারে বিক্রি হয়। প্রতি একর থেকে ৫০ হাজার টাকার শুধু নীলপাতা বিক্রি করা যায়। তাছাড়া জ্বালানি এবং জৈবসার তো আছেই। এ পদ্ধতিতে ২০০ থেকে ২৫০ কেজি পাতা থেকে ১ কেজি নীল পাওয়া যায়। ১ কেজি নীল পেতে ১ হাজার টাকা খরচ হয়। বিশ্ববাজারে প্রতি কেজি প্রাকৃতিক নীল প্রায় ২৫ হাজার টাকা পর্যন্ত বিক্রি হয়। তবে এ ক্ষেত্রে শর্ত হলো ১০০ ভাগ বিশুদ্ধ মানসম্মত হতে হবে। স্থানীয় পর্যায়ের সংগ্রহ পদ্ধতিতে প্রায় ১০ ভাগ নীল পাওয়া যায়। এ কারণে অনেক দেশে প্রচুর চাহিদা থাকা সত্ত্বেও রফতানি করা যাচ্ছে না। নীলের বীজ থেকে নীল তেল তৈরি করা যায়। ১০ মিলিলিটার তেল ৩০ মার্কিন ডলার। ৫ কেজি বীজ থেকে ১ কেজি তেল পাওয়া যায়। বীজের মূল্য ১৫০ টাকা ২০০ টাকা পর্যন্ত প্রতি কেজি। নীল চাষে আর উৎপাদন খরচ নেই বললেই চলে। কেননা এটা অনুর্বর জমিতে আবাদ করা হয় জমি উর্বর করার জন্য। তাই কোনো সার পানি বালাইনাশক দেয়ার দরকার হয় না। শুধু শ্রমিক মজুরি লাগে। সর্বসাকুল্যে ১ একরে ২ থেকে আড়াই হাজার টাকা খরচ হয়।
 
ডা. নিখিলের নীল চাষে বর্তমান প্রতিশ্রুত সমৃদ্ধির অগ্রপথিক। একা একাই এগোনোর চেষ্টা করছেন। তাকে যথাযথ সহযোগিতা করতে পারলে আমরা নীল নিয়ে আরো অনেক দূরে এগিয়ে যেতে পারতাম। Mennonite Central Committee (MCC) এ থেকে তিনি নীলে কারিশমা আয়ত্ব করেন।  তিনি মনে করেন নীলে এত বৈশিষ্ট্যের কার্যকারিতার পরেও নীলগাছ দিয়ে জাক দেয়ার পর বাছাই করা ডালপালা থেকে উৎকৃষ্ট মানের কম্পোস্ট সার তৈরি; পাতা সংগ্রহের পর গাছের অবশিষ্টাংশ থেকে কয়েল তৈরি এবং নিজের তৈরি বন্ধু চুলাতে ব্যবহার; ছাকনির সময় ফেলে দেয়া প